Hot
Advertisement

রক্ষীতা

রক্ষীতা
Tags: রক্ষীতা
Created at 20/2/2015



রক্ষীতা
আজ সকাল থেকেই পৌলমীর ব্যাস্ততার শেষ নেই। শ্বশুর শাশুড়ী বাড়ীতে নেই, হঠাৎই যেতে হয়েছে মামা শ্বশুর গুরুতর অসুস্থ হওয়ায় খবর পেয়ে। ওদিকে আজ শ্বশুরের বাল্যবন্ধু অতীন আঙ্কল ছুটি কাটাতে ওদের বাড়ীতে আসছেন প্রায় বছর দশেক পর, নিজের বলতে তেমন কেউ নেই তাই এতদিন পর বন্ধুর আসার ইচ্ছে শুনে শ্বশুর জোর করেছিলেন এখানেই এসে থাকার জন্য। অশেষের অফিসে এত কাজের চাপ যে আঙ্কলকে এয়ারপোর্টে রিসিভ করতে যেতেও পারবে না। অগত্যা, পৌলমী একা হাতে সব কিছু সামলে যখন এয়ারপোর্টে পৌছল তখন ঘড়ির কাঁটা প্রায় তিনটের ঘরে। আঙ্কলের পাঠানো ছবি দেখা ছিল তাই চিনে নিতে অসুবিধা হবার কথা নয় তবুও উদ্গ্রীব হয়ে তাকিয়ে ছিল বেরিয়ে আসতে থাকা মানুষজনের দিকে, একেবারে পেছনের দিকে তাকিয়ে এক পলক দেখেই নিজের অজান্তেই বুকে দোলা লেগে গেল। প্রায় ছ ফুটের সুঠাম মেদহীন শরীর, চুলে কিছুটা ইচ্ছাকৃত অবহেলার ছাপ করে তুলেছে আরো আর্কষনীয়। বয়সের ছাপ নেই শরিরের কোথাও। একেবারে লেডি কিলার ধরনের চেহারা, দেখলেই যে কোনো মেয়ের শরীরে জোয়ার আসতে বাধ্য। ফেরার পথে প্রথম আলাপের জড়তা কাটতে সময় লাগেনি একটুও, কিছুক্ষনের মধ্যেই বোঝা গেল শুধু চেহারাই আকর্ষনীয় নয়, সহজেই আপন করে নেবার কি অপার ক্ষমতা আছে মানুষটার ভেতরে।